বড়লেখায় যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগে ২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

বড়লেখা প্রতিনিধিঃ

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় এক তরুণীকে (১৮) ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলায় ২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সন্ধ্যায় পৃথকস্থান থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন-উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের বাদেপুকুরিয়া গ্রামের মৃত রফিক উদ্দিনের ছেলে দেলোয়ার হোসেন (২৫) ও উপজেলার চুকারপুঞ্জি গ্রামের মাসুক মিয়ার ছেলে আলী আহমদ (১৮)।

এদিকে শনিবার (১০ অক্টোবর) সকালে নির্যাতনের শিকার ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মামলা ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ওই তরুণী ছোটবেলা থেকে নানা বাড়িতে বসবাস করেন। বৃহস্পতিবার তিনি খালার বাড়ি বেড়াতে যান। রাতে নানা বাড়ি থেকে খবর আসে তার নানা অসুস্থ। অসুস্থ নানাকে দেখতে শুক্রবার সকালে খালার বাড়ি থেকে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। শাহবাজপুর বাজারে আসার পর তরুণীর খালাতো ভাই সিএনজি চালক আলী আহমদের গাড়িতে তাকে তুলে দেন। পথে সিএনজি চালক আলী শাহবাজপুর বাজারের পাহারাদার দেলোয়ারকে গাড়িতে উঠান। একপর্যায়ে গাড়িতে দেলোয়ার তরুণীকে ধর্ষণের চেষ্টা চালান।

এ অবস্থায় তরুণী গাড়ি থেকে নামার চেষ্টা করলে সিএনজি চালকের সহযোগিতায় দেলোয়ার জোর করে তাকে আতুয়া এলাকার নির্জন স্থানে নিয়ে যান। পরে সেখানে দেলোয়ার তাকে ধর্ষণ করেন। এসময় স্থানীয় ইসলামপুর এলাকা থেকে একটি মোটরসাইকেলে লোকজন আসলে তারা দুজন ওই তরুণীকে সেখানে রেখে পালিয়ে যায়। নানা বাড়ি না যাওয়ায় তাকে খুঁজতে গিয়ে খালাতো ভাই ও স্থানীয় লোকজন আতুয়া এলাকায় পেয়ে উদ্ধার করেন।

এ ঘটনায় দুপুরে ধর্ষক দেলোয়ার ও সহযোগিতার অভিযোগে আলীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন তরুণী। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে শাহবাজপুর তদন্ত কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (পুলিশ পরিদর্শক) মোহাম্মদ মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে সন্ধ্যায় পৃথকস্থান থেকে অভিযুক্ত দুজনকে গ্রেফতার করে।

বড়লেখা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার শনিবার (১০ অক্টোবর) দুপুরে বলেন, ধর্ষণের অভিযোগে এক তরুণী থানায় দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। মামলার পরই পুলিশ দুজনকে গ্রেফতার করেছে। তাদের দুজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.