বন্ধ করে দেয়া হয়েছে গোলাপগঞ্জের আনারস বাগান, হতাশ হয়ে ফিরছেন দর্শনার্থীরা

মোট পড়া হয়েছে 262 

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

গোলাপগঞ্জের আনারস বাগান। মানুষের মুখে মুখে। আনারস বাগানের সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য প্রতিদিন শতশত দর্শনার্থী আসছেন। এক টিলা থেকে দাঁড়িয়ে আরেক টিলার সৌন্দর্য উপভোগ করছেন। এক টিলা থেকে আরেক টিলায় ঘুরছেন, নিজের মন মত ছবি ক্যামেরা বন্দি করছেন। আনারস বাগান ঘুরে কিনে নিয়ে যাচ্ছেন সুস্বাদু আনারস। গোলাপগঞ্জ উপজেলা পেরিয়ে দেশের মানুষের কাছে এখন অতিপ্রিয় জায়গা হচ্ছে আনারস বাগান।

কিন্তু হঠাৎ করেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে আনারস বাগানে দর্শনার্থীদের প্রবেশ। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে আনারস বাগানের মূল গেট। রোদ-বৃষ্টি উপেক্ষা করে দূরদূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসছেন, এসে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন। মালিক কর্তৃপক্ষ যে সকল দর্শনার্থী আসতেছেন তাদেরকে ফিরিয়ে দিচ্ছেন।

শনিবার (১২ জুন) ছুটির দিনে আনারস বাগানে ঘুরতে আসা অনেক দর্শনার্থী বাগানের ভিতরে ডুকতে না পেরে হতাশ হয়ে ফিরে যেতে দেখা যায়।

পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে প্রতিদিনের ন্যায় আজও আনারস বাগানে ব্যক্তিগত, ভাড়ায় চালিত গাড়ি, মোটরসাইকেল যোগে দর্শনার্থীরা এসে ফিরে ফিরে যাচ্ছেন। অনেক দূরদূরান্ত থেকে আসা দর্শনার্থীরা জানান, সবার মত আমরাও সৌন্দর্য উপভোগ করার জন্য এসেছি। কিন্তু হঠাৎ করেই মালিক কর্তৃপক্ষ বাগান রক্ষণাবেক্ষণ করবে বলে বাগানের প্রবেশ পথ বন্ধ করে দিয়েছে। যে কারণে আমরা বাগানে ডুকতে না পেরে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছি।

বুধবারীবাজার থেকে আসা সুহেল আহমদ বলেন, ছুটির দিন তাই বাগানে ঘুরতে এসেছি। এসে দেখি বাগান বন্ধ। কর্তৃপক্ষ সবাইকে ফিরিয়ে দিতেছে। তবে পরবর্তীতে আবারও খুলে দেয়া হবে বলে তারা জানান।

নগরীর উপশহর থেকে পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসা চাকুরীজীবী ফজল আহমদ বলেন, আজ অফিস বন্ধ। পরিবার নিয়ে ছুটির দিনে ঘুরতে এসেছিলাম। কিন্তু বাগানে ডুকতে না পেরে অনেক খারাপ লাগতেছে।

বাগান বন্ধের বিষয়ে বাগানের তত্ত্বাবধায়ক কাওছার রাজা জানান, আজ থেকে আমরা বাগান রক্ষণাবেক্ষণের জন্য দর্শনার্থীদের প্রবেশ বন্ধ করে দিয়েছি। আগামী ১ মাস পর্যন্ত বাগান বন্ধ থাকবে। পরবর্তীতে আবারও খুলে দেয়া হবে।

তিনি জানান, বাগানে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা অনেক ক্ষতির সম্মুখীন করেছেন আমাদের। ছোট-ছোট চারা, আনারস ছিঁড়ে প্রায় ১৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *