ঢাকা টু সিলেট ট্রেনের সময়সূচী ২০২১

মোট পড়া হয়েছে 286 

বাংলাদেশের ভুপ্রাকৃতিকভাবে সমৃদ্ধ নগরীর মাঝে সিলেট অন্যতম। সিলেট বিভাগের অপরূপ সৌন্দর্য্যের টানে প্রতিবছর অনেক ভ্রমনপিয়াসু মানুষ সিলেট আগমন করেন। এছাড়া অনেকে ব্যাবসা ও অন্যান্য জরুরী কাজেও সিলেটে যাতায়ত করে থেকেন। সারা দেশ থেকে আসা ভ্রমণকারীর মধ্যে একটা বড় অংশ ঢাকা হয়ে সিলেট আসেন। ঢাকা থেকে সিলেট আসার জন্য ট্রেন যাত্রীদের অন্যতম পছন্দের বাহন। 

আপনি যদি ঢাকা  থেকে সিলেট ট্রেনে যাত্রা করতে চান, তাহলে এই পোস্টটি আপনাকে ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেনের সময়সূচী পেতে অবশ্যই সাহায্য করবে।  আমরা আজকে এই ব্লগের মাধ্যমে আপনারদেরকে ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেনে করার ক্ষেত্রে ভ্রমণের বিস্তারিত প্রয়োজনীয় তথ্য যেমন ট্রেনের সময়সূচী, দূরত্ব, ট্রেনের তালিকা, ও ট্রেনের ভাড়ার পরিমাণ সম্পর্কে ধারন দেওয়ার চেস্টা করব। 

ঢাকা টু সিলেট ট্রেনের তালিকা (Dhaka to Sylhet train list)

ঢাকা থেকে সিলেট রুটে ৪টি ভালো মানের আন্তনগর ট্রেন ও মেইল ট্রেন যাতায়ত করে।

পারাবত এক্সপ্রেস

পারাবত এক্সপ্রেস (ট্রেন নং ৭০৯/৭১০) বাংলাদেশ রেলওয়ের পরিষেবার অন্তর্গত একটি আন্তঃনগর ট্রেন যা রাজধানী ঢাকা থেকে সিলেটের মধ্যে যাতায়ত করে। 

এটি ঢাকার কমলাপুর থেকে সিলেট স্টেশনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এটি বাংলাদেশের অন্যতম দ্রুত এবং বিলাসবহুল ট্রেনগুলোর একটি। এই ট্রেন সেবাটি সর্বপ্রথম ১৯৮৬ সালে চালু করা হয়।

উন্নত মানের যাত্রী সেবার জন্য পারাবত ঢাকা থেকে সিলেট আন্তনগর ট্রেনগুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয়। এর অন্যতম কারন অন্যান্য ট্রেনগুলোর তুলনায় পারাবত কম বিরতি নেয়, যার ফলে যাত্রীরা যাত্রাপথে খুব কম বিরক্ত হোন। পারাবতে এসি, নন-এসি, শোভন চেয়ার এই তিন ধরণের শ্রেনী আছে। তাছাড়া মালপ্ত্র রাখার সুব্যাবস্থার জন্য ওভারহেড রেক আছে। 

পারাবত এক্সপ্রেসের সময়সূচি ও বিরতিস্থলসমূহ (Parabat Express Schedule)

পারাবত এক্সপ্রেস এক্সপ্রেস ভোর ৬টা ২০ মিনিটে ঢাকার কমলাপুর ষ্টেশন থেকে ছেড়ে দুপুর ১টার দিকে সিলেট পৌছায়। সাপ্তাহে একদিন মঙ্গলবার পারাবত বন্ধ থাকে।ঢাকা থেকে সিলেট আসতে ১০টি স্টেশনে বিরতি নেয়ঃ ঢাকা বিমান বন্দর রেল ষ্টেশন, ভৈরব জংশন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, আজমপুর নওয়াপাড়া(হবিগঞ্জ), শায়েস্তাগঞ্জ জংশন, শ্রীমঙ্গল, ভানুগাছ, কুলাউড়া জংশন, মাইজগাও 

জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস (Jayantika Express)

জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস (ট্রেন নং ৭১৭/৭১৮) বাংলাদেশ রেলওয়ে দ্বারা পরিচালিত ঢাকা থেকে সিলেট স্টেশন পর্যন্ত চলাচলকারী একটি আন্তঃনগর ট্রেন। এটি বাংলাদেশের অন্যতম দ্রুতগামী ট্রেন। রাস্ট্রপতি হোসেইন মোহাম্মদ এরশাদের আমলে জয়ন্তিকা সর্বপ্রথম যাত্রা শুরু করে। ১৯৮৬ সালের ১৩মে জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসের উদ্ভোদন করা হয়। শুরু থেকেই জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস বেশ সফলতার সাথে যাত্রীদের পরিষেবা দিয়ে আসছে। 

জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসের সময়সূচি ও বিরতিস্থলসমূহ (Jayantika Express Schedule)

জয়ন্তিকা ঢাকা কমলাপুর ষ্টেশন থেকে প্রতিদিন সকাল সোয়া ১১টার দিকে রওনা হয় সিলেটে ষ্টেশনে প্রবেশ করে সন্ধ্যা ৭টায়। ঢাকা থেকে সিলেটগামী জয়ন্তিকার কোন বন্ধের দিন নেই অপরদিকে সিলেট থেকে ঢাকাগামী জয়ন্তিকা সপ্তাহে একদিন বৃহস্পতিবারে বন্ধ থাকে। ঢাকা থেকে সিলেট আসতে জয়ন্তিকা মোট ১৪টি ষ্টেশনে যাত্রাবিরতি নেয়ঃ ঢাকা বিমান বন্দর রেল ষ্টেশন, ভৈরব জংশন, আশুগঞ্জ,ব্রাহ্মণবাড়িয়া, আজমপুর নওয়াপাড়া(হবিগঞ্জ),মুকুন্দপুর, হরশপুর,মনতলা,শায়েস্তাগঞ্জ জংশন, শ্রীমঙ্গল ,ভানুগাছ, কুলাউড়া জংশন, মাইজগাও 

উপবন এক্সপ্রেস(Upaban Express)

উপবন এক্সপ্রেসের ট্রেন নাম্বার (৭৩৯/৭৪০)। এই আন্তনগর ট্রেনটি বাংলাদেশ রেলওয়ের রাত্রীকালিন সেবা। উপবনের উদ্ভোদন করা হয়েছিল ৪ঠা মে ১৯৮৮ সালে।

উপবন এক্সপ্রেসের সময়সূচি ও বিরতিস্থলসমূহ:(Upaban Express Schedule)

উপবন এক্সপ্রেস কমলাপুর ষ্টেশন থেকে রাত সাড়ে ৮টায় রওনা হয়ে ভোর পাঁচটার দিকে সিলেট পৌছায়। উপবন এক্সপ্রেস সাপ্তাহে একদিন বুধবার বন্ধ থাকে। উপবন ১০টি ষ্টেশনে থামেঃ ঢাকা বিমানবন্দর রেলওয়ে ষ্টেশন , নরসিংদী (কেবল ৭৩৯), ভৈরব বাজার জংশন, শায়েস্তাগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল, ভানুগাছ, শমসের নগর,  কুলাউড়া জংশন, বরমচাল এবং মাইজগাও। 

কালনী এক্সপ্রেস (Kalini Express)

কালনী এক্সপ্রেস (৭৭৩/৭৭৪) হচ্ছে বাংলাদেশ রেলওয়ের একটি আন্তঃনগর যাত্রীবাহী ট্রেন যা ঢাকা জেলার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন ও সিলেট রেলওয়ে স্টেশনের মধ্যে চলাচল করে। কালনী এক্সপ্রেসে তটি শীততাপ নিয়ন্ত্রিত কোচসহ ১২টি চিনা কোচ নিয়ে যাত্রা শুরু করে। 

কালনী এক্সপ্রেসের সময়সূচি ও বিরতিস্থলসমূহ:(kalini Express Schedule)

কালনী এক্সপ্রেস ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে সিলেটের উদ্দ্যেশে রওনা দেয় বিকাল ৩টায় এবং সিলেটে পৌছায় রাত সাড়ে ৯টায়। শুক্রবারে কালনী এক্সপ্রেসের পরিষেবা বন্ধ থাকে। 

কালনী এক্সপ্রেস নয়টি ষ্টেশনে থামে সেগুলো হলঃ ঢাকা বিমানবন্দর রেলওয়ে ষ্টেশন , নরসিংদী (কেবল ৭৭৪),আজমপুর, ভৈরব বাজার জংশন, শায়েস্তাগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল, শমসের নগর,  কুলাউড়া জংশন, এবং মাইজগাও। 

সুরমা মেইল (Surma Mail Train)

সুরমা মেইল (ট্রেন নং -০৯/১০( বাংলাদেশ রেলওয়ে পরিচালিত একটি যাত্রীবাহী ট্রেন। ট্রেনটি কমলাপুর থেকে সিলেট যাত্রাপথে গাজীপুর জেলা, নরসিংদী জেলা, কিশোরগঞ্জ জেলা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা হবিগঞ্জ জেলা ও মৌলভীবাজার জেলাকে সংযুক্ত করে।

সুরমা মেইলের সময়সূচি ও বিরতিস্থলসমূহ:

সুরমা মেইল ঢাকা কমলাপুর রেলওয়ে ষ্টেশন থেকে রাত ১০টা ৫০মিঃ ছেড়ে যায় এবং সিলেট পৌছায় পরদিন দুপুর ১২টা ১০মিনিটে। সুরমা মেইলের সপ্তাহে কোন বন্ধের দিন নেই। প্রারম্ভিক ও গন্তব্যের ষ্টেশন সহ সুরমা মেইল ৫৮টি বিরামস্থলে যাত্রাবিরতি নেয়। 

ঢাকা টু সিলেট ট্রেন রুটম্যাপ 

ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেনে ভ্রমণ করতে হলে এই রুটম্যাপ সম্পর্কে সম্যক ধারণা বাঞ্ছনীয়। এটি বাংলাদেশের অন্যতম দীর্ঘ রেলপথ । শুরু থেকে শেষ অবধি অনেক ছোট বড় স্টোপেজ রয়েছে। 

আপনি যদি ঢাকা টু সিলেটের ট্রেন ম্যাপ সম্পর্কে বিশদ ধারণা পেতে চান তাহলে নিন্মে উল্লখিত বাংলাদেশ রেলওয়ের পিডিএফ থেকে দেখতে পারেন ।

আপনি যাতে সহজে রুট্ম্যাপটি বুঝতে পারেন তাই আমরা সংক্ষিপ্ত আকারে দিয়েছি। সেই বিরামস্থলগুলি হলো:

 

ঢাকা বিমানবন্দর স্টেশন > আশুগঞ্জ > ব্রাহ্মণবাড়িয়া > আজমপুর >  মুকুন্দপুর >  হরশপুর >  মনতলা > নোয়াপাড়া >  শাহজী বাজার > শায়েস্তাগঞ্জ > শ্রীমঙ্গল > ভানুগাছ > কুলাউড়া > মাইজগাঁও 

ঢাকা টু সিলেট রেলের দূরত্ব ও সময়

বাংলাদেশ রেলওয়ের ওয়েবসাইটের মতে ঢাকা থেকে সিলেটের দূরত্ব ৩১৯ কিলোমিটার। বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে সড়কপথে ঢাকা থেকে সিলেটের দূরত্ব ২৪৩ কিলোমিটার। 

আন্তনগর ট্রেনে ঢাকা থেকে সিলেট যেতে সময় লাগে ৭ ঘণ্টা এর মত যা সড়কপথে এনা, শ্যামলী থেকে ১ ঘণ্টা বেশি । যদিও ৬ ঘণ্টায় যাওয়া যায় কিন্তু ট্রেনে ভ্রমণ বাস অপেক্ষা অনেক আরামদায়ক। তাছাড়া বাসের ক্ষেত্রে ট্রাফিক জ্যামের জন্য অনেক সময় ৬ ঘণ্টার অধিকও লাগে।

ঢাকা টু সিলেট মেইল ট্রেইন সুরমা এক্সপ্রেস আন্তনগরের তুলনায় অনেক ধীরগতিতে চলে। এই মালবাহী ট্রেনটি প্রত্যেক ষ্টেশনে থামে এবং আন্তনগর থেকে বেশি যাত্রাবিরতি নেয়। যার ফলে ঢাকা থেকে সিলেট পৌঁছাইতে ১৩ ঘণ্টার মত সময় লাগে।

ঢাকা টু সিলেট আন্তনগর ট্রেনের সময়সূচী

ঢাকা থেকে সিলেট ভ্রমণের জন্য আন্তনগর ট্রেন একটি উপযোগী মাধ্যম। ঢাকা থেকে সিলেট রুটে পারাবত এক্সপ্রেস (৭০৯), জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস (৭১৭), উপবন এক্সপ্রেস (৭৩৯) ও কালানী এক্সপ্রেস (৭৭৩) মোট ৪টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করে। নিচে ট্রেনগুলির ঢাকা কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে ছাড়ার সময় এবং সিলেট স্টেশনে পৌছানোর সময়সূচী দেওয়া হলোঃ

ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেন শিডিউল (Dhaka to sylhet train schedule)

ট্রেন নংট্রেনের নামছাড়ার সময় পৌছার সময়সাপ্তাহিক বন্ধ
৭০৯পারাবত এক্সপ্রেসভোর ৬ঃ২০দুপুর ১ঃ০০মঙ্গলবার
৭১৭জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসসকাল ১১ঃ১৫সন্ধ্যা ৭ঃ০০প্রযোজ্য নহে
৭৩৯উপবন এক্সপ্রেসরাত ৮ঃ৩০ভোর ৫ঃ০০বুধবার
৭৭৩কালনী এক্সপ্রেসবিকেল ৩ঃ০০রাত ৯ঃ৩০শুক্রবার

সিলেট থেকে ঢাকা ট্রেন শিডিউল (Sylhet to dhaka train schedule)

ট্রেন নংট্রেনের নামছাড়ার সময় পৌছার সময়সাপ্তাহিক বন্ধ
৭০৯পারাবত এক্সপ্রেসদুপুর ৩ঃ৪৫রাত ১০ঃ৪০মঙ্গলবার
৭১৭জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসসকাল ১১ঃ১৫সন্ধ্যা ৬ঃ২৫বৃহস্পতিবার
৭৩৯উপবন এক্সপ্রেসরাত ১১ঃ৩০সকাল ৬ঃ৪৫বুধবার
৭৭৩কালনী এক্সপ্রেসসকাল ৬ঃ১৫দুপুর ১ঃ০০শুক্রবার

মেইল ট্রেন

ঢাকা টু সিলেট রুটে সুরমা মেইল এক্সপ্রেস (০৯) নামে মোট ১টি মেইল এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করে। নিচে ট্রেনটির ঢাকা থেকে সিলেট চলাচলের সময় দেওয়া হলঃ

ঢাকা টু সিলেট মেইল ট্রন শিডিউল

ট্রেন নংট্রেনের নামছাড়ার সময় পৌছার সময়সাপ্তাহিক বন্ধ
০৯সুরমা মেইলরাত ১০ঃ৫০দুপুর ১২ঃ১০প্রযোজ্য নহে

সিলেট টু ঢাকা মেইল ট্রন শিডিউল

ট্রেন নংট্রেনের নামছাড়ার সময় পৌছার সময়সাপ্তাহিক বন্ধ
০৯সুরমা মেইলসকাল ৭ঃ২০ রাত ০৯ঃ২০প্রযোজ্য নহে

ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেনের টিকেট মুল্য তালিকা

ঢাকা থেকে সিলেটের মোট দূরত্ব প্রায় ৩১৯ কিলোমিটার। গন্তব্যের দূরত্বের উপর ভিত্তি করে বাংলাদেশ রেলওয়ে টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করে। তাছাড়া টিকিটের মূল্য কেবিন বা চেয়ার বা আসনের মানের  উপরও নির্ভর করে। সুযোগ-সুবিধা যত বেশি হবে টিকেটের মুল্য তত বেশি হবে। 

বাংলাদেশ রেলওয়ের সর্বশেষ ও পরিমার্জিত ট্রেন টিকেট মুল্যের তালিকা অনুযায়ী আমরা উপরিউক্ত চারটি আন্তনগর ট্রেন পারাবত এক্সপ্রেস,জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস, উপবন এক্সপ্রেস , কালনী এক্সপ্রেস ও সুরমা মেইলের টিকেটের মুল্য আপনাদের উদ্দ্যেশে তুলে ধরেছি।

ঢাকা টু সিলেট ট্রেন টিকেট মুল্য ২০২১ (Dhaka to Sylhet Ticket Price 2021)

আসনের শ্রেনী মুল্য
২য় শ্রেনী সাধারন ৮০/-
২য় শ্রেনী মেইল১১০/-
কমিউটার ১৩৫/-
সুলভ১৬০/-
শোভন ২৬৫/-
শোভন চেয়ার ৩২০/-
১ম শ্রেনী চেয়ার ৪২৫/-
স্নিগ্ধা ৬১০/-
১ম শ্রেনী কেবিন ৬৪০/-
এসি সীট ৭৩৬/-
এসি কেবিন ১০৯৯/-

ঢাকা টু সিলেট ট্রেন টিকেট বুকিং অনলাইন (Step by Step Dhaka to Sylhet Train Ticket Booking)

আপনি ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেনের টিকিট অনলাইনে বা রেল স্টেশন থেকেও কিনতে পারেন। আপনি আপনার ভ্রমণের সর্বোচ্চ দশ দিন আগে টিকিট কিনতে পারেন। 

ঢাকা থেকে সিলেট ট্রেনের টিকিট অনলাইন বুকিং হল টিকিট কেনার বা বুকিং করার অন্যতম সহজ উপায়। আগে একটা সময় ছিল ট্রেনের টিকেট কাটতে হলে ঘন্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হত। কিন্তু আমাদের দেশের সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশের ছোঁয়া রেলওয়ে বিভাগে লেগেছে যার ফলে বর্তমানে খুব সহজেই ঘরে বসেই আপনার কাংখিত ট্রেনের টিকেট নিশ্চিত করতে পারবেন। 

সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ রেলওয়ে(Bangladesh Railway) অফিসিয়াল ওয়েবসাইট বা এপক্লিশন ব্যাবহারের মাধ্যমে অনলাইন ট্রেন টিকেট ক্রয়ের প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করতে হবে।

  • প্রথমে আপনাকে বাংলাদেশ রেলওয়ে ইসেবা ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার নাম,মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। এটা মাথায় রাখতে হবে আপনি কোনভাবেই নিবন্ধনের আগে টিকেট কেনার অনুমতি পাবেন না।

  • এরপর বাংলাদেশ রেলওয়ে আপনাকে আপনার মেইল ​​ঠিকানায় একটি যাচাইকরণ লিঙ্ক পাঠাবে। সেই লিঙ্কে ক্লিক করার মাধ্যেমে আপনি আপনার নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে।

  • রেজিট্রেশন সম্পন্ন হওয়ায় আপনি এখন অনলাইন টিকেট কিনতে পারেন।আপনার মোবাইল নাম্বার ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করার পর আপনি এখন ড্যাশবোর্ড দেখতে পারবেন । সেখান থেকে purchase ticket (টিকেট ক্রয়) বাটনে ক্লিক করুন।

  • এরপর আপনার ষ্টেশন, গন্তব্য, যাত্রার তারিষন,ও আসন নির্বাচন করে সার্চ বাটনের মাধ্যেমে ট্রেন খুজে বের করুন। 

  • “অটো-সিলেক্ট” বা “সিট সিলেকশন” -এ ক্লিক করে আপনি আপনার সিট এবং রুট নির্বাচন করতে পারবেন যদি সিট পাওয়া যায় আপনার কাংখিত ট্রেনের টিকিট দেখতে পাবেন এবং তারপর আপনার পেমেন্ট পদ্ধতি সম্পন্ন করবে।

  • সফলভাবে পেমেন্ট পরিশোধ করার পরে একটি নিশ্চিতকরণ রসিদ দেখানো হবে।

  • কিছুক্ষন পরে আপনি আপনার ড্যাশবোর্ড থেকে ট্রেনের টিকেটটি ডাউনলোড করতে পারেবন।

  • একই ধরণের পন্থা অনুসরণ করে বাংলাদেশ রেলওয়ের অফিসিয়াল এপ্লিকেশন রেল সেবা থেকে টিকেট করতে পারবেন। তবে সেক্ষেত্রে গুগল প্লেস্টোর থেকে এপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করে নিতে হবে।

এই লিংকে ক্লিক করে টিকেট ক্রয় করুনঃ

 

ঢাকা টু সিলেট ট্রেনের কিছু সাধারন জিজ্ঞাসা

কিভাবে ঢাকা টু সিলেট ট্রেনের টিকেট করবেন? (How to buy dhaka to sylhet ticket)

ঢাকা থেকে সিলেটের টিকিট বুক করার দুটি উপায় রয়েছে। সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হল রেলওয়ে স্টেশন থেকে টিকিট কেনা। এছাড়া আপনি চাইলে অনলাইনে খুব সহজে বাংলাদেশ রেলওয়ের অফিসিয়াল এপ্লিকেশনের মাধ্যমে ঘরে বসেই টিকেট করতে পারবেন। তবে সেক্ষেত্রে অতিরিক্ত সার্ভিস চার্জ দিতে হবে। 

ঢাকা টু সিলেট রুটে কয়টি আন্তনগর ট্রেন চালু আছে (How many intercity trains are running on Dhaka to Sylhet route)? 

ঢাকা থেকে সিলেট রুটে বাংলাদেশ রেলওয়ের মোট চারটি আন্তনগর ট্রেন চালু আছে। সেগুলো হলঃ পারাবত, জয়ন্তিকা, উপবন ও কালনী এক্সপ্রেস। 

ঢাকা টু সিলেট ট্রেনের সর্বনিন্ম ভাড়া কত?

দ্বিতীয় শ্রেনী সাধারনের ভাড়া সবচেয়ে কম, ৮০ টাকা।

পারাবত এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে সিলেট আসতে মোট কতটি ষ্টেশনে বিরতি নেয়?

ঢাকা টু সিলেট মোট দশটি ষ্টেশনে থামায় পারাবত এক্সপ্রেস।

জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে সিলেট আসতে মোট কতটি ষ্টেশনে বিরতি নেয়?

ঢাকা থেকে সিলেট আসতে ১৪টি ষ্টেশনে যাত্রাবিরতি নেয় জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস।

ঢাকা থেকে সিলেট আসতে উপবন এক্সপ্রেস মোট কতটি ষ্টেশনে বিরতি নেয়?

ঢাকা টু সিলেটে ১০টি ষ্টেশনে বিরতি নেয় উপবন এক্সপ্রেস।

কালনী এক্সপ্রেস ঢাকা থেকে সিলেট আসতে মোট কতটি ষ্টেশনে বিরতি নেয়?

আন্তনগর ট্রেনের মধ্যে কালনী এক্সপ্রেস সবচেয়ে কম যাত্রাবিরতি নেয়, মাত্র নয়টি ষ্টেশনে ।

ঢাকা টু সিলেট আন্তনগর ট্রেনের টিকেট কি অগ্রিম করা যায়?

হ্যাঁ। আপনি চাইলে খুব সহজে ১০ দিন আগে বাংলাদেশ রেলওয়ের ইসেবা ওয়েবসাইট ও  এপ্লিকেশনের মাধ্যমে খুব সহজে টিকেট করে নিতে পারেন।

ঢাকা টু সিলেট আন্তনগর ট্রেনের টিকেট কি ফেরত দেয়া যায়?

হ্যা টিকেট ফেরত দেয়া যায় তবে সেক্ষত্রে বাংলাদেশ রেলওয়ের নির্দিষ্ট বিধিমালা মেনে। 

ঢাকা টু সিলেট টিকেট করতে হলে কি জাতীয়পরিচয়পত্রের প্রয়োজন হয়?

না । তবে অনলাইনে টিকেট করার ক্ষেত্রে আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের কোন এপ্লিকেশনের মাধ্যমে টিকেট করা যায়?

গুগোল প্লে স্টোর থেকে বাংলাদেশ রেলওয়ের রেল সেবা (Rail Sheba) এপ্লিকেশনের মাধ্যমে ঘরে বসে নিমিষেই টিকেট করতে পারবেন।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *