গত ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত ৫ হাজার ৪২ জন, মৃত্যু ৪৫

মোট পড়া হয়েছে 138 

বিয়ানীবাজারের ডাক ডেস্কঃ

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও পাঁচ হাজার ৪২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে টানা দুই দিন দৈনিক পাঁচ হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হলো।

গতকাল একদিনে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার ১৮১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। এর আগে রেকর্ড অনুযায়ী, গত বছরের ২ জুলাই এক দিনে চার হাজার ১৯ জনকে শনাক্ত করা হয়েছিল।

আজসহ টানা আট দিন ধরে দৈনিক সাড়ে তিন হাজারের বেশি রোগী শনাক্ত হচ্ছে। এর মধ্যে গত ২৩ মার্চ তিন হাজার ৫৫৪ জনের, ২৪ মার্চ তিন হাজার ৫৬৭ জনের, ২৫ মার্চ তিন হাজার ৫৮৭ জনের, ২৬ মার্চ তিন হাজার ৭৩৭ জনের, ২৭ মার্চ তিন হাজার ৬৭৪ জনের, ২৮ মার্চ তিন হাজার ৯০৮ জনের ও ২৯ মার্চ পাঁচ হাজার ১৮১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ছয় লাখ পাঁচ হাজার ৯৩৭ জন।

একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৪৫ জন। গতকালও ৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এখন পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন আট হাজার ৯৯৪ জন।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ২৬ হাজার ৬২০টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনায় আক্রান্ত আরও পাঁচ হাজার ৪২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৮ দশমিক ৯৪ শতাংশ।

মার্চের শুরু থেকেই দেশে পুনরায় করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকলেও গত কয়েক দিন ধরে তা দ্রুত গতিতে বাড়ছে। গত ২৬ মার্চ শনাক্তের হার ছিল ১৩ দশমিক ৬৯ শতাংশ। ২৭ মার্চ তা বেড়ে ১৪ দশমিক ৯০ শতাংশ, ২৮ মার্চ ১৭ দশমিক ৬৫ শতাংশ ও ২৯ মার্চ ১৮ দশমিক ৩৮ শতাংশে দাঁড়ায়।

আজসহ টানা এক সপ্তাহ যাবৎ গড়ে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় ৩৭। গত ২৪ মার্চ মারা গেছেন ২৫ জন, ২৫ মার্চ ৩৪ জন, ২৬ মার্চ ৩৩ জন, ২৭ মার্চ ৩৯ জন, ২৮ মার্চ ৩৫ জন ও ২৯ মার্চ ৪৫ জন।

আজ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৪৫ জনের মধ্যে ২৮ জন পুরুষ ও ১৭ জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে একজনের বয়স ০-১০ বছরের মধ্যে, দুই জনের বয়স ২১-৩০ বছরের মধ্যে, দুই জনের বয়স ৩১-৪০ বছরের মধ্যে, সাত জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে, আট জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব ২৫ জন।

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন দুই হাজার ১৬২ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন পাঁচ লাখ ৪০ হাজার ১৮০ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৪৬ লাখ ৪৩ হাজার ৬৪৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ০৫ শতাংশ। আর মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৯ দশমিক ১৫ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৮ শতাংশ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *